রং ফর্সাকারি ক্রিম কিভাবে কাজ করে ও কী ক্ষতি করে?

আমাদের শরীরে যে মেলানিন নামক যে উপাদান রয়েছে, রং ফর্সাকারি ক্রিম শরীরের সেই মেলানিন নামক উপাদান তৈরী হওয়া কমিয়ে দেয়। মেলানিনই শরীরের রং কালো ও ফর্সা হবার জন্য দায়ী। এই মেলানিনই ক্ষতিকর সূর্যের হাত থেকে আমাদের রক্ষা করে। এই ক্রিমগুলো ব্যবহার করলে প্রথম দিকে সত্যিই মুখের রং উজ্জ্বল হয়৷ কিন্তু কিছু দিন পরেই বোঝা যায়, এর মধ্যে থাকা বিটামেথাজোন, ক্লোবিটাজোল, মমিটাজোন প্রভৃতি স্টেরয়েড এবং হাইড্রোকুইনোন, রেটিমাইড অ্যাসিড ইত্যাদির জেরে কী মারাত্মক ক্ষতি হয়ে গিয়েছে মুখের!

কী ক্ষতি করে এই রং ফর্সাকারি ক্রিম?
রং ফর্সাকারি ক্রিমে স্টেরয়েড, পারদ এমন সব উপাদান ব্যবহার করার ফলে ত্বকের অনেক ক্ষতি হয়। চলুন দেখে নেই স্টেরয়েড ব্যবহারে যেসব ক্ষতি হয় তা হলো-

১) ত্বকে অনেক ব্রন ও শরীরে অবাঞ্ছিত লোম দেখা দেয়।

২) স্কিন পাতলা হয়ে যায় ফলে রোদে গেলে মুখ লাল হয়ে যায় আর মুখ জ্বালাপোড়া করে।

৩) ত্বকের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় ফলে বিভিন্ন ধরনের সংক্রামণ দেখা দেয়।

৪) ক্রিম ব্যবহার বন্ধ করে দিলে গায়ের রং আগে থেকে কালো হয়ে যায়।

৫) ক্ষত সারানোর স্বাভাবিক ক্ষমতা কমে যায়।

এই সব ক্রিমে ব্যবহৃত পারদ শরীরের জন্য মারাত্নক ক্ষতিকর।

রং ফর্সা করার ক্রিমের ক্ষতিকর দিক

আর পারদ ব্যবহারে যে সকল ক্ষতি হয়-

১) কিডনি ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে।

২) মানসিক অস্থিরতা বাড়াতে পারে।

৩) স্নায়ুজনিত সমস্যা দেখা দেয়।

৪) ফর্সা হওয়ার ক্রিমে অ্যাকটিভ কার্বন ব্যবহার করা হয়। এটি ত্বকের জন্য খুবই ক্ষতিকর। অনেক ক্ষেত্রে এই রং ফর্সাকারি ক্রিমের ব্যবহার থেকে ক্যান্সারও হয়ে থাকে।

ত্বক উজ্জ্বল ও ফর্সা রাখতে নিয়মিত যে টিপসগুলো অনুসরণীয়
১) ত্বকের যত্নে এই সব রং ফর্সাকারি ক্রিম ব্যবহার না করে প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করাই উত্তম। আর এই উপাদানগুলো সবসময় আপনার ঘরে হাতের কাছেই থাকে। কী সেগুলো? হ্যাঁ, আপনি হলুদ, মসুরের ডাল, শসা, কলা ইত্যাদি ত্বকের যত্নে নিয়মিত ব্যবহার করতে পারেন।

ত্বকের যত্নে প্রাকৃতিক উপাদান

২) প্রচুর পরিমাণে শাক-সবজি ও ভিটামিন সি যুক্ত ফল খাবেন।

৩) প্রচুর পরিমাণে পানি পান করবেন।

৪) আর অবশ্যই পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমাবেন ও দুশ্চিন্তা কম করবেন।

গায়ের ফর্সা রং সৌন্দর্যের মাপকাঠি নয়। মনের সৌন্দর্যই আসল। সবসময় বিশ্বাস রাখুন নিজের যোগ্যতায়। এ বিশ্বাস ধরা দিবে সাফল্য হয়ে।