বার বার মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরেছেন বাংলাদেশি শ্রমিক রাজু

সিঙ্গাপুরে মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরেছেন বাংলাদেশি শ্রমিক রাজু সরকার (২৯)। বার বার তিনি আইসিইউতে মৃত্যুর খুব কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিলেন। টানা ৫ মাস তিনি হাসপাতালে। এর বেশির ভাগ সময় কেটেছে আইসিইউতে। লড়াই করতে করতে তিনি যেন একটা নতুন জীবন লিজ পেয়েছেন। তাকে হাসপাতাল থেকে ছাড় দেয়া হয়েছে। মুক্তি পেয়েই তিনি খেতে চেয়েছেন খাসির মাংস। তার মুক্তিকে ঘিরে হাসপাতালের স্টাফরা উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠেন।

তবে এরই মধ্যে রাজু সরকার হারিয়েছেন ২৪ কেজি ওজন। এ খবর দিয়েছে সিঙ্গাপুরের অনলাইন স্ট্রেইট টাইমস।

এতে বলা হয়েছে, ফেব্রুয়ারিতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হন রাজু সরকার। এ সময় বাংলাদেশে অবস্থানরত তার স্ত্রী ছিলেন অন্তঃসত্ত্বা। তারা প্রথম সন্তানের পিতামাতা হতে যাচ্ছিলেন। সেই স্ত্রী ও অনাগত সন্তানের জন্য জীবনের সঙ্গে লড়াই করছিলেন রাজু।

অবশেষে শুক্রবার তান তোক সেং হাসপাতাল (টিটিএসএইচ) থেকে হেঁটে বেরিয়ে আসেন তিনি। যেন সৃষ্টিকর্তা তাকে একটি নতুন জীবন দিয়েছেন। ওদিকে ৩০ শে মার্চ তার স্ত্রী একটি পুত্র সন্তান প্রসব করেছেন। রাজু হাসপাতাল থেকে যখন বেরিয়ে আসেন তখন তাকে বেশ উচ্ছ্বসিত দেখায়। হাসপাতালের স্টাফদের তিনি থাম-আপ দেন। স্ট্রেইটস টাইমসকে তিনি জানান, প্রথমেই কিছু খাসির মাংসের তরকারি খেতে চান।

সিঙ্গাপুরে প্রথমদিকে যে কয়েকজন বিদেশী শ্রমিক করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তার মধ্যে রাজু অন্যতম। মধ্য মে’তে তাকে স্থানান্তর করা হয়েছিল টিটিএস হাসপাতালের পুনর্বাসন কেন্দ্রে। সেখানে তিনি নাটকীয়ভাবে সুস্থতার দিকে এগিয়ে যেতে থাকেন।

ফলে এত দীর্ঘ সময় তাকে আইসিইউতে রাখা হয়। টিটিএস হাসপাতালের শ্বাসযন্ত্র ও ক্রিটিক্যাল কেয়ার মেডিসিন বিভাগের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ড. বেনজামিন হো বলেছেন, রাজু এত দীর্ঘ সময় আইসিইউতে থাকায় বিস্মিত চিকিৎসকরা। রাজুকে যখন প্রথম ভর্তি করানো হয় তখন তিনি ছিলেন খুবই অসুস্থ। দুই থেকে তিনবার তিনি মৃত্যুর দুয়ারে পৌঁছে গিয়েছিলেন। তার রক্তচাপ একেবারে নিচে নেমে গিয়েছিল। অক্সিজেনের লেভেল নেমে গিয়েছিল আশঙ্কাজনক পর্যায়ে।